24.8 C
New York
Friday, September 17, 2021

করোনার মৃদু উপসর্গের রোগীদের চিকিৎসায় হোটেল ভাড়ার চিন্তা

করোনার চিকিৎসার বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, হাসপাতালগুলোতে এখন প্রায় ৯০ শতাংশ শয্যায় রোগী আছেন। এ চিন্তা থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি ‘ফিল্ড হাসপাতাল’ তৈরি করা হচ্ছে। সেখানে ৫০০ থেকে ৬০০ শয্যা প্রস্তুত করা যাবে। পর্যায়ক্রমে এক হাজার শয্যায় উন্নীত করা যাবে। এ ছাড়া মৃদু উপসর্গের রোগীদের চিকিৎসার জন্য আলাদা হোটেল ভাড়া করার চিন্তা করা হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে চলমান বিধিনিষেধ ১০ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়। এরপর ১১ আগস্ট থেকে গণপরিবহন, দোকানপাট, অফিসসহ সবকিছু সীমিত পরিসরে খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে ঈদের পর ২৩ জুলাই থেকে বিধিনিষেধ চলছে, যা ৫ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। তবে ১ আগস্ট থেকে রপ্তানিমুখী শিল্পকারখানা খুলে দেওয়ার পর প্রশ্ন ওঠে, তাহলে ৫ আগস্টের পর বিধিনিষেধ আর বাড়বে কি না। এখন সেই সিদ্ধান্ত জানাল সরকার।

আজকের বৈঠকে ৭ থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে ১৪ হাজার কেন্দ্রে একযোগে করোনার টিকা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এতে বয়স্ক মানুষ অগ্রাধিকার পাবেন। একই সঙ্গে শ্রমজীবী মানুষ, দোকানদার, গণপরিবহনের কর্মীদের নিজ নিজ ওয়ার্ড থেকে টিকা নিতে হবে। টিকা না নিয়ে কেউ কর্মস্থলে আসতে পারবেন না। ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে যাঁরা বাইরে চলাচল করবেন, তাঁরা টিকা না নিয়ে চললে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে বিবেচিত হবে বলেও মন্তব্য করেন আ ক ম মোজাম্মেল হক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, সরকারের হাতে এখন প্রায় সোয়া কোটি টিকা আছে। এ মাসে আরও প্রায় এক কোটি টিকা হাতে এসে পৌঁছাবে। স্থানীয়ভাবেও টিকা উৎপাদনের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে চীনের সিনোফার্মের সঙ্গে বাংলাদেশের একটি কোম্পানি মিলে স্থানীয়ভাবে টিকা উৎপাদনের কাজও অনেক দূর এগিয়ে গেছে। এ বিষয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের অনাপত্তিও পাওয়া গেছে।

জাহিদ মালেক বলেন, ‘টিকার পাশাপাশি মাস্ক পরিধান করা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। যদি এটিকে সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করতে চাই, তাহলে পুলিশকেও ক্ষমতা দেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। যাঁরা মাস্ক পরবেন না, পুলিশ যাতে তাঁদের কিছুটা হলেও জরিমানা করতে পারে, এ বিষয়ে অধ্যাদেশ লাগবে। এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। হয়তো–বা আমরা সেদিকেও যাব।’

বর্তমানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মূলত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা এই জরিমানা করে থাকেন।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest Articles

%d bloggers like this: